রোহিত ‘লিখলেন’ ০ থেকে ১০০…

0
14

টেস্ট ওপেনার নিয়ে ভারতের সমস্যা নতুন না। কতজনই তো এলেন-গেলেন! এই আসা-যাওয়ার মাঝে নির্বাচকেরা বিশেষ একজনকে মনে মনে বেছে রেখেছিলেন বহু আগে থেকেই। কিন্তু তাঁর পারফরম্যান্সের জন্যই পরীক্ষা করে দেখতে দ্বিধায় ছিলেন তারা। কিন্তু দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজ শুরুর আগে প্রস্তুতি ম্যাচে জুয়াটা খেললেন নির্বাচকেরা। নামিয়ে দিলেন ওপেনিংয়ে। ফল আসল— ২ বল খেলে নির্ভেজাল ০। কিন্তু পরের গল্পটা একদম অন্যরকম—। জাত ব্যাটসম্যানরা উইলো দিয়ে বাইশ গজের যেভাবে নিজেদের ঘুরে দাঁড়ানোর গল্প লিখে থাকেন আরকি!

রোহিত শর্মা আজ বিশাখাপত্তম টেস্টের প্রথম দিনে তেমন এক গল্পই লিখলেন। সংক্ষিপ্ত সংস্করণে ‘হিটম্যান’ পরিচিতি পাওয়া রোহিত বুঝিয়ে দিলেন, ব্যাটিংটা জানলে টেস্টের মেজাজেও নিজস্ব সুর তোলা যায়। এ সংস্করণে আজ প্রথমবারের মতো ওপেন করে সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন রোহিত। তৃতীয় সেশনে বৃষ্টির কারণে প্রথম দিনের খেলা আর হতেই পারেনি। তার আগে ভারতের সংগ্রহ বিনা উইকেটে ২০২।

বোঝাই যাচ্ছে, প্রোটিয়া বোলারদের নাকের-জল চোখের এক করে ছেড়েছেন ভারতের দুই ওপেনার। গত আগস্টে টেস্ট ক্রিকেটকে বিদায় বলা প্রোটিয়াদের কিংবদন্তি পেসার ডেল স্টেইন তাই বাধ্য হয়েই সাবেক সতীর্থদের সাহায্য করতে টুইট করেছেন, ‘প্রথাগত ভাবনার বাইরে কিছু করতে হবে।’ কিন্তু প্রশ্ন হলো, রোহিত যেভাবে ব্যাটিং করছেন তাতে ‘আউট অব দ্য বক্স’ কিছু করাটা বেশ কঠিনই।

বৃষ্টি আসার আগে ১৭৪ বলে ১১৫ রানে অপরাজিত রোহিত । আছে ৫ ছক্কা ও ১২টি চারের মার। ৮৪ বলে ফিফটি তুলে নেওয়ার পর বাকি ৫০ রান করতে খেলেছেন ৭০ বল। বোঝাই যাচ্ছে, শুরুতে ধীর লয়ে খেলে উইকেটে ধাতস্থ হওয়ার ধীরে ধীরে স্ট্রোকের পেখম খুলেছেন। হিসেব নিকেশ করে ঝুঁকি নেওয়া ছাড়া বিপজ্জনক শট ছিল না বললেই চলে। অপর প্রান্তে মায়াঙ্ক আগারওয়ালের ১৮৩ বলে ৮৪ রানের ইনিংসটির মূল্যও কিন্তু কম না। ওপেনিং সতীর্থ হিসেবে রোহিতের মতো কেউ থাকলে নিজের কাজটা কী, তা বুঝেই ব্যাট করছেন আগারওয়াল।

২০০৭ সালে ওয়ানডে অভিষিক্ত রোহিত টেস্টে অভিষিক্ত হন ছয় বছর পর। অভিষেক টেস্টেই পেয়েছিলেন সেঞ্চুরি। আজকের সেঞ্চুরিটি দিয়ে অনন্য এক কীর্তিই গড়লেন রোহিত। ভারতের ইতিহাসে প্রথম খেলোয়াড় হিসেবে তিন সংস্করণে ওপেনার হিসেবে সেঞ্চুরির কীর্তি গড়লেন এ ব্যাটসম্যান। তাঁর মতো ব্যাটসম্যানের ওয়ানডে ও টেস্ট ম্যাচের সংখ্যা দেখলে বিস্ময় জাগবেই। ২৭ টেস্টের পাশে ২১৮ ওয়ানডে! অবশ্য ভারতীয় নির্বাচকদেরও খুব একটা দোষ দেওয়া যায় না। টেস্ট ময়দানে অভিষেকে ব্যাক টু ব্যাক সেঞ্চুরির পর রোহিত তৃতীয় সেঞ্চুরিটি পেয়েছিলেন ৪৫ তম ইনিংসে গিয়ে। তবে আজকের ইনিংসটি দেখে যে কেউ ভাবতে পারেন, সাদা পোশাকে রোহিতের বুঝি পুনর্জন্ম হলো!

অবশ্য টেস্টে ঘরের মাঠে রোহিতের ব্যাটিং গড় চোখ কপালে তুলে দেওয়ার মতো। ঘরের মাঠে এ নিয়ে টানা ছয় ইনিংসে ন্যূনতম পঞ্চাশোর্ধ্ব রানের ইনিংস খেললেন রোহিত। ঘরের মাঠে তাঁর ব্যাটিং গড় ৯৮.২২! টেস্টে ঘরের মাঠে ন্যূনতম ১০ ম্যাচ খেলেছেন, এমন ব্যাটসম্যানদের মধ্যে রোহিতের ব্যাটিং গড় দ্বিতীয় সেরা। তাহলে শীর্ষে কে?

কে আবার, সেই বেটে মতো অস্ট্রেলিয়ান —স্যার ডন ব্রাডম্যান (৩৩ ম্যাচে ৯৮.২২)!

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে