যাদবপুরে বড় ভাঙন এসএফআইয়ে, তোপ সিপিএমের বিরুদ্ধেও

36

ভোটের মুখে বড় ধাক্কা খেল এসএফআই। ১৯ ফেব্রুয়ারি ছাত্র সংসদ নির্বাচন যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে। তার মাস দেড়েক আগে নেতৃত্বকে কড়া চিঠি লিখে সংগঠন ছেড়ে দিলেন বিদায়ী ছাত্র সংসদের সভানেত্রী-সহ ৩১ জন। ধর্ষণের অভিযোগ থাকা ছাত্রনেতার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নেওয়া, উপদলীয় কার্যকলাপে প্রশ্রয়, আদর্শচ্যুত হওয়া, পুরুষতান্ত্রিকতা, নারীবিদ্বেষ, ব্রাহ্মণ্যবাদ— এই রকম এক গুচ্ছ গুরুতর অভিযোগ সিপিএম এবং এসএফআই নেতৃত্বের বিরুদ্ধে তুলেছেন দলত্যাগীরা।

শনিবার এই গণইস্তফার ঘটনা ঘটেছে। এসএফআই-এর যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় আঞ্চলিক কমিটির সম্পাদক দেবরাজ দেবনাথের কাছে জমা দেওয়া হয়েছে গণইস্তফা পত্র। সংগঠনের কলকাতা জেলা কমিটির সম্পাদককেও ইস্তফা পত্রের প্রতিলিপি পাঠানো হয়েছে।

যাঁরা সংগঠন ছাড়ার কথা ঘোষণা করেছেন, তাঁরা কিন্তু এসএফআই-এর সাধারণ সদস্য নন। বিদায়ী ছাত্র সংসদের সভানেত্রী সোমাশ্রী চৌধুরী-সহ যে ৩১ জন ইস্তফাপত্রে স্বাক্ষর করেছেন, তাঁদের অধিকাংশই যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে এসএফআই-এর সামনের সারির মুখ। চিঠির শুরুতেই এক ছাত্রনেতার বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ ওঠার কথা মনে করিয়ে দেওয়া হয়েছে নেতৃত্বকে। সংগঠনের বিশ্ববিদ্যালয় আঞ্চলিক কমিটির ওই প্রাক্তন সম্পাদকের বিরুদ্ধে শুধু এসএফআই-এর জেলা কমিটির কাছে নয়, সিপিএমের জেলা নেতৃত্বের কাছেও অভিযোগ জমা দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু অভিযুক্তের বিরুদ্ধে কোনও পদক্ষেপ দল বা ছাত্র সংগঠন করেনি বলে চিঠিতে লেখা হয়েছে।